জাপানে উচ্চশিক্ষার কিছু অজানা স্কলারশিপ

জাপানে উচ্চশিক্ষার (মাস্টার্স ও পিএইচডি) জন্য সব থেকে সুপরিচিত বৃত্তি হচ্ছে এমইএক্সটি MEXT স্কলারশিপ। এর বাইরেও বেশ কিছু স্কলারশিপ আছে। আজকের লেখায় খুব সংক্ষেপে সব স্কলারশিপগুলো সম্পর্কে আলোচনা করব।
এমইএক্সটি স্কলারশিপ সাধারণত দুই ধরনের
(ক) অ্যামবেসি রিকোমেনডেড।
(খ) ইউনিভার্সিটি রিকোমেনডেড।
অ্যামবেসি রিকোমেনডেড স্কলারশিপ সংখ্যায় খুব কম। বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আবেদন করতে হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের স্কলারশিপ পাতায় চোখ রাখলে বিস্তারিত তথ্য পাবেন।
ইউনিভার্সিটি রিকোমেনডেড স্কলারশিপ অ্যামবেসি রিকোমেনডেড স্কলারশিপ থেকে সংখ্যায় প্রায় দশ গুন। এই স্কলারশিপের প্রথম শর্ত হচ্ছে অধ্যাপকের সঙ্গে যোগাযোগ করা। সাধারণত বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে অধ্যাপকদের ইমেইল আইডি সংগ্রহ করে সরাসরি যোগাযোগ করতে হয়। অধ্যাপক আগ্রহী হলে ইমেইল উত্তরে সাধারণত আপনার গবেষণার অভিজ্ঞতা, পাবলিকেশন, কেন আপনি এই অধ্যাপক অথবা ল্যাবকে পছন্দ করলেন এসব জানতে চায়। উত্তরগুলো ঠিকঠাক মতো পেলে স্কলারশিপ আবেদন করার জন্য রিসার্চ প্রপোজাল লিখতে বলে। এটাই মূলত প্রথম ধাপ। দ্বিতীয় ধাপে সাধারণত স্কাইপে ভাইভা হয়। সবকিছু ঠিক থাকলে চূড়ান্ত নির্বাচনের জন্য নাম নির্ধারণ করে।
ইউনিভার্সিটি রিকোমেনডেড লোকাল গভর্নমেন্ট ও ফাউন্ডেশন স্কলারশিপ
এমইএক্সটি ছাড়াও আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য কিছুসংখ্যক লোকাল গভর্নমেন্ট ও বিভিন্ন ফাউন্ডেশনের স্কলারশিপ বরাদ্দ থাকে। এটির পরিমাণ বিশ্ববিদ্যালয় অনুযায়ী নির্ভর করে। জাপানের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এ ধরনের স্কলারশিপ বেশি থাকে (যেমন টোকিও ইউনিভার্সিটি, কিয়োটো ইউনিভার্সিটি ও ওসাকা ইউনিভার্সিটি ইত্যাদি)। এই সব স্কলারশিপের মধ্যে Rotary, Mitsubishi, Panasonic, Toshiba scholarship অন্যতম। এই স্কলারশিপেরও প্রথম শর্ত হচ্ছে অধ্যাপকের সঙ্গে যোগাযোগ করা। যেসব অধ্যাপক ইউনিভার্সিটি রিকোমেনডেড এমইএক্সটি স্কলারশিপে শিক্ষার্থী নিতে অপারগতা প্রকাশ করে সেসব অধ্যাপককে উপরিউক্ত স্কলারশিপের জন্য অনুরোধ করা যেতে পারে। এসব স্কলারশিপে বিপুলসংখ্যক চাইনিজ, ভিয়েতনামি ও ইন্দোনেশিয়ান শিক্ষার্থী থাকলেও সঠিক তথ্যের অভাবে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা খুবই নগণ্য।
অধ্যাপকের নিজস্ব ফান্ডিং
কিছু কিছু অধ্যাপক তার নিজস্ব প্রকল্প থেকে বিদেশি শিক্ষার্থীদের স্কলারশিপ প্রদান করে থাকেন।

আল রায়হান স্বর্ণ:
ম্যাটেরিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং সায়েন্স,
ওসাকা ইউনিভার্সিটি, জাপান।

5/5 (1)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *